ডাইরেক্ট অ্যাকশনে’ অবতীর্ণ হতে হবে : রিজভী

আওয়ামী সহিংসতার দুষ্টুচক্রে আইনের শাসন, ন্যায়বিচার, মানুষের মানবিক মর্যাদা তথা গণতান্ত্রিক অধিকার এখন ধুলোয় লুটোপুটি করছে এমন মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দেশের জনগণের কাছে এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম শেখ হাসিনা। এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে আওয়ামী নাৎসী সরকারের বিরুদ্ধে ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশনে’ অবতীর্ণ হতে হবে।

সোমবার ১৫ নভেম্বর বিকেলে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, কেরোসিন, ডিজেল, এলপিজি গ্যাস ও যানবাহনের ভাড়া বৃদ্ধিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের সীমাহীন ঊর্দ্ধগতিতে প্রতিবাদ জানাতে ইতোমধ্যে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন প্রচারপত্র বিতরণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ দেশব্যাপী বিএনপি’র উদ্যোগে প্রচারপত্র বিতরণ কর্মসূচি শুরু হয়। এই কর্মসূচি চলাকালে দেশের বিভিন্ন স্থান তথা জেলা সদরসহ হাট-বাজারে প্রচারপত্র বিতরণের সময় পুলিশ ব্যাপকভাবে বাধা প্রদান করে।

তিনি বলেন, দেশে চাল- ডাল- নুন- তেল-পেঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সব কিছুর মূল্য জনগণের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি এবং গণপরিবহণে ভাড়া বৃদ্ধিতে জনজীবনে নাভিশ্বাস উঠেছে। আর কোটি কোটি টাকা খরচ করে বিদেশে গিয়ে শেখ হাসিনা কথিত উন্নয়নের গল্প শোনাচ্ছেন। আপনি দেশে ফিরে এসেই আবারো আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর নির্ভর করে জনগণের মতামতকে তোয়াক্কা না করে নির্মম দুঃশাসন শুরু করেছেন। গণতন্ত্রকে সমাধিস্থ করে সকল নাগরিক স্বাধীনতাকে সমূলে উৎপাটন করে আদিম বর্বর শাসনের এক নির্মম ও ভয়ানক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, দুর্নীতি আর লুটপাটের এত বিভৎস বহিঃপ্রকাশ বিশ্বের আর কোথাও দেখা যায়নি। বেপরোয়া গতিতে হরিলুট ও দুর্নীতি করার জন্যই ভোটারদেরকে বন্দী করে জবরদস্তিমলকভাবে ক্ষমতায় থাকতে চাচ্ছে আওয়ামী লুটেরা সরকার। দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি, তেল-গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে গণপরিবহনে ভাড়া বৃদ্ধি জনজীবনকে লন্ডভন্ড করে দিয়েছে। গতকাল সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন-আওয়ামী লীগ নয়, বিএনপি দেউলিয়া হয়ে তারা এখন সর্বহারাতে রুপ নিতে যাচ্ছে। ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য সবসময় অন্তসারশুণ্য শুণ্যকুম্ভের মতো।

রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদেরকে বলতে চাই-আপনারা এতই চাপাবাজী করেন, কিন্তু কই আমেরিকাতে অনুষ্ঠিতব্য গণতান্ত্রিক দেশের সম্মেলনে নেপাল, মালদ্বীপ ও পাকিস্তানকে ডাকা হলো কিন্তু আপনাদেরকে তো ডাকলো না। যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যায়নে এবার লাল তালিকায় রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। মিলেনিয়াম চ্যালেঞ্জ কর্পোরেশনের (এমসিসি) মূল্যায়নে দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণসহ ২০ সূচকের মধ্যে ১৬টিতেই বাংলাদেশ পড়েছে রেডজোনে। এটি একটি নজীরবিহীন ঘটনা। এটি অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এ থেকেই প্রমাণিত হয় যে, শেখ হাসিনার উন্নয়নের ফুলঝুরি লুটপাটের চেতনায় উদ্বুদ্ধ। দেউলিয়া কে তা দেখতে আপনি নিজেই আয়নায় চোখ রাখুন।

রিজভী আরো বলেন,আওয়ামী সরকারের অপকর্ম আড়াল করতেই বিএনপি’র যেকোন কর্মসূচিতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে লেলিয়ে দেয়া হয়। লুটপাটের জাঁকজমক কাহিনী যাতে প্রকাশিত না হয় এজন্যই বিএনপি’র কর্মসূচিতে ঝাঁপিয়ে পড়ছে পুলিশসহ আওয়ামী সন্ত্রাসী বাহিনী। জাতীয় তহবিল লোপাটের পর সেটি পূরণ করতে জনগণের কাছ থেকে টাকা নিংড়ে নেয়া হচ্ছে। কারখানা বন্ধ হওয়া, কর্মসংস্থান কমে যাওয়া, খাদ্য উৎপাদন হ্রাস পাওয়ায় নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির জন্য দায়ী এই সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post আইনজীবীদের মানবতার কল্যাণে কাজ করতে হবে : স্পিকার
Next post দুদকের কর্মকর্তাকে চাকরিচ্যুতি নিয়ে সৃষ্ট ধোঁয়াশা দূর করার আহ্বান টিআইবির