ক্লাস 8 এ ফেল করার পর সবাই মজা নিয়েছিল, আজ 2 হাজার কোটি টাকার কোম্পানির মালিক

বর্তমান বিশ্বে প্রায় সব অভিভাবকই তাদের সন্তানদের বলেন যে, শুধুমাত্র পড়ালেখায় সফলতার একমাত্র পথ। তারা মনে করেন স্কুল-কলেজে অভিনন্দন না পেলে জীবনে কিছুই করতে পারা যায় না। মুম্বাইয়ের এক ছেলে সমাজের এই চিন্তা ধারাকে সম্পূর্ণ ভুল প্রমাণ করেছে। এই ছেলেটি তার অন্য দক্ষতার ভিত্তিতে সাফল্যের নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

আজ আমরা তৃষ্ণিত অরোরা সম্পর্কে কথা বলতে যাচ্ছি, যিনি পড়াশোনা করতে একেবারেই পছন্দ করেন না। তৃষ্ণিতের পরিবার তাকে নিয়ে খুব চিন্তিত ছিল। কিন্তু আজ তৃষ্ণিত অরোরা সাইবার নিরাপত্তায় অত্যন্ত পারদর্শী হয়ে উঠেছেন। তিনি ছোটবেলা থেকেই কম্পিউটার ঘাটাঘাটি পছন্দ করতেন, প্রায়ই তিনি কম্পিউটারে ভিডিও গেম খেলতেন, কিন্তু তার বাবা খুব চিন্তিত ছিলেন তার ছেলের সারাদিন কম্পিউটার গেম খেলা নিয়ে।

তার বাবা কম্পিউটারে পাসওয়ার্ড সেট করে রাখতেন কারণ তার ছেলে প্রচুর কম্পিউটার গেম খেলতো, কিন্তু তৃষ্ণিত কম্পিউটারে এতটাই দক্ষ ছিলেন যে তিনি কম্পিউটারের পাসওয়ার্ড হ্যাক করে গেম খেলা শুরু করতেন। এসব দেখে তার বাবা তার প্রতি খুবই মুগ্ধ হয়ে তার জন্য একটি নতুন কম্পিউটার নিয়ে আসেন। এখন সমস্যা হল তৃষ্ণিত অষ্টম শ্রেণীতে ফেল করেছিল, সে কম্পিউটারকে এত ভালবাসত যে সে সারাক্ষণ কম্পিউটার নিয়েই ব্যাস্ত থাকতো, তার অন্য বিষয়ের জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার সময় ছিল না। তার বাবা তখন তাকে কম্পিউটার সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেন যে সে কম্পিউটার কেয়ারে কিছু করতে চায় কিনা।

19 বছর বয়সে, তিনি কম্পিউটার ফিক্সিং এবং সফ্টওয়্যার ক্লিনিং করা শিখেছিলেন। এরপর কম্পিউটার এ ছোট ছোট কাজ শুরু করেন। তৃষ্ণিত এতটাই কম্পিউটার দক্ষ হয়েছিলেন যে তিনি কম্পিউটার সম্পর্কিত ছোট ছোট কাজ করতে শুরু করেছিলেন এবং এর কারণে তিনি ছোট প্রকল্প এর কাজ পেতে শুরু করেছিলেন। কিন্তু হয়তো তার স্বপ্ন আরো বড় হওয়ার কথা ছিল, তাই তিনি কঠোর পরিশ্রম করতে থাকেন এবং কম্পিউটার সম্পর্কে আরও বেশি করে শিখতে থাকেন।

আজ তৃষ্ণিত একজন এথিক্যাল হ্যাকার(Ethical Hacker)। এথিক্যাল হ্যাকিং এর মধ্যে একটি নেটওয়ার্ক বা সিস্টেম অবকাঠামোর নিরাপত্তা(System Infrastructure Security) মূল্যায়ন জড়িত। হ্যাকিংয়ে, নেটওয়ার্ক বা সিস্টেম অবকাঠামোর নিরাপত্তা মূল্যায়ন করা হয়। সার্টিফাইড হ্যাকাররা যাতে নেটওয়ার্ক বা সিস্টেম অবকাঠামোর নিরাপত্তা লঙ্ঘন করতে না পারে, গোপন তথ্য চুরি করতে না পারে বা ভাইরাস বা অন্যান্য উপায়ে ক্ষতি করতে না পারে সেদিকে নজর রাখে।

তারপর 23 বছর বয়সে, তিনি রিলায়েন্স(Reliance), এসবিআই(SBI)ব্যাঙ্ক, অ্যাভন সাইকেলের মতো ভারতের বড় কোম্পানির ক্লায়েন্ট হয়ে ওঠেন। বর্তমানে তাদের ভারতে 4টি অফিস রয়েছে এবং সম্প্রতি তারা দুবাইতে একটি অফিস খুলেছে। এমনকি আম্বানিরাও তাদের কাছ থেকে সাইবার পরিষেবা নিয়েছে এবং তারা তাদের গ্রাহক। তিনি বলেছেন যে আমি যখন অষ্টম শ্রেণিতে পড়ি তখনও আমি কম্পিউটার এবং এথিক্যাল হ্যাকিংয়ের প্রতি আগ্রহী ছিলাম।

তিনি টিএসি সিকিউরিটি(TAC Security) নামে একটি সাইবার সিকিউরিটি কোম্পানি শুরু করেন। তৃষ্ণিত অরোরা TAC সিকিউরিটি সিকিউরিটি অ্যালায়েন্স নামে একটি কোম্পানির মালিক, যার মূল্য বর্তমানে 2,000 কোটি টাকা। তিনি Hacking Talk With Trishnit Arora, The Hacking Era এবং Hacking With Smart Phones এর মত বইও লিখেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post পুতিনের নিয়ে বাবা ভেঙ্গার ভবিষ্যৎবাণী সত্যি হলো!
Next post এই ৫টি বিধ্বংসী অস্ত্রের জন্য পুরো বিশ্ব রাশিয়াকে ভয় পায়, আমেরিকার কাছেও নেই এই ক্ষমতা