ডেমরায় প্রেমিকাকে হোটেলে নিয়ে চার বন্ধু মিলে ধর্ষণ

গণধর্ষণের শিকার তরুণী এবার এসএসসি পাস করেছেন। গত তিন দিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন তিনি। এ ঘটনায় তার বাবা যাত্রাবাড়ী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ‌ধর্ষণে নেতৃত্ব দেওয়া যুবক ওই তরুণীর বয়ফ্রেন্ড। ‌

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ১৯ বছরের এক তরুণীকে চার বন্ধু মিলে ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অসুস্থ ওই তরুণীকে এক পথচারী নারী চিকিৎসক উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। তাকে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার (৭ মার্চ) সন্ধ্যায় ডেমরার স্টাফ কোয়াটার এলাকার ফেস ইন নামের আবাসিক হোটেলে এই ঘটনা ঘটে।

তরুণীকে উদ্ধার করা নারী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সন্ধ্যার দিকে ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার মোড়ে অসুস্থ অবস্থায় পড়েছিল মেয়েটি। তার শরীর থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। উঠে দাঁড়াতেও পারছিল না। তখন সে সাহায্য চাইলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসি।’

ভুক্তভোগী ওই তরুণী হাসপাতালে পুলিশের কাছে অভিযোগ করে জানান, তামজিদ হোসেন আদর (২২) নামে এক যুবকের সঙ্গে এক বছর তিন মাস ধরে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। যুবকটি তার দূরসম্পর্কের চাচাতো ভাই।

দুজনই থাকেন যাত্রাবাড়ী এলাকায়। তারা দুজন এবার উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছেন। তিন দিন আগে তারা বিয়ে করবেন বলে বাসা থেকে চলে আসেন। এই তিন দিন তারা বিভিন্ন জায়গায় ছিলেন। সব শেষ সোমবার বেলা তিনটার দিকে তাকে তামজিদ ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার এলাকার একটি হোটেলে নিয়ে যান।

ওই তরুণী আরও জানান, সেখানে গিয়ে দেখেন, রুমটিতে আরও তিন যুবক অবস্থান করছেন। তখন তার প্রেমিক তামজিদ জানান, তারা বিয়ের সাক্ষী হওয়ার জন্য এসেছেন। এরপর তাকে হোটেলে আটকে চারজন মিলে ধর্ষণ করেন।

এক পর্যায়ে মেয়েটিকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে বলা হয়, কাউকে জানালে তাকে মেরে ফেলা হবে এবং তার নগ্ন ছবি ছড়িয়ে দেওয়া হবে। তখন তিনি এই ঘটনা কাউকে জানাবেন না বলে আশ্বস্ত করলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে বাইরে এসে তিনি রাস্তায় পড়ে যান।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী ইনচার্জ (এএসআই) আব্দুল খান জানান, রাতে ভুক্তভোগী কিশোরীকে পথচারী এক নারী হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তাকে ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে। বিস্তারিত তদন্তের জন্য থানা পুলিশকে ঘটনাটি জানানো হয়েছে।

ডেমরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার নাসির উদ্দিন জানান, ওই ছাত্রী ও যুবক তারা দুজনেই প্রেমিক-প্রেমিকা। গত তিন দিন আগে মেয়েটি তার প্রেমিকার সঙ্গে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসে। এ ঘটনার পর মেয়েটির বাবা যাত্রাবাড়ী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ‌

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post নারী কর্মকর্তাকে থাপ্পড় দিয়ে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিলেন নারী এমপি
Next post বিমানে চীনা পতাকা লাগিয়ে রাশিয়ায় হামলার পরামর্শ ট্রাম্পের