নৌকার মিছিল করতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো আওয়ামী লীগ কর্মী মোমেনের পরিবারের পাশে কেউ নেই

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলায় নৌকার মিছিল করতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো আওয়ামী লীগ কর্মী মোমেনের পরিবারের পাশে কেউ নেই। পরিবারটি এখন অসহায় জীবনযাপন করছে।

পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, মৃত্যুর দুই মাস অতিবাহিত হলেও এখনো কোন নেতাকর্মী দরিদ্র এই পরিবারটির খোঁজ-খবর নেয়নি। উপরন্তু স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে নিহতের স্ত্রীকে আয়া পদে চাকরি দেওয়ার কথা বলেও তা দেওয়া হয়নি।

জানা গেছে, গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বাগজানা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে নৌকার মনোনীত প্রার্থী জামাত আলীর মিছিল করতে যায় চেঁচড়া গ্রামের ইউসুফ আলী মন্ডলের ছেলে আওয়ামী লীগ কর্মী আব্দুল মোমিন মন্ডল। পথিমধ্যে বাগজানা বাসস্ট্যান্ডে পাঁচবিবি থেকে হিলিগামী একটি ট্রাক তাকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে ওই দিনই নিহত আব্দুল মোমিনের বড় ভাই মতিয়ার রহমান বাদী হয়ে চালক তারাজুল ইসলাম ও সহকারী হিরোকে আসামি করে পাঁচবিবি থানায় একটি মামলা দাযের করেন।

এ ঘটনায় অসহায় পরিবারটি একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ে। তার সংসারে থাকা বড় মেয়ে মীম এখন দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার স্ত্রীর কোলজুড়ে রয়েছে প্রায় দুই মাস বয়সী একটি ছেলে সন্তান। তাদের নিয়ে এখন অনেকটা খেযে না খেয়ে বেঁচে আছে তারা। মোমিনের স্ত্রী মর্জিনা বেগম জানান, মৃত্যুর দুই মাস অতিবাহিত হলেও এখনো কোনো নেতাকর্মী তাদের খোঁজ-খবর নেয়নি।

আব্দুল মোমিনের বড় ভাই আব্দুর রাজ্জাক জানান, মৃত্যুর পর স্থানীয় সংসদ সদস্য ঘোষণা দিয়েছিলেন, রামভদ্রপুর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়া পদে তার স্ত্রীকে নিয়োগ দেবেন। অথচ এই প্রতিশ্রুতি না রেখে সাড়ে ৪ লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে হিরা বিবি নামে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়োগ দিয়েছেন ওই বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউনুস আলী।

তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে ইউনুস আলী জানান, নিয়োগের বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য আমাকে কোনো কিছু বলেননি। বিধি মোতাবেক নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। আর যেখানে আমার পরিবারই চালাতে পারি না, সেখানে মোমিনের পরিবারের খোঁজ-খবর কিভাবে নেব?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post হাদিসুর রহমানের মরদেহ ইউক্রেন সরকারের কাছে হস্তান্তর
Next post যুদ্ধে রাশিয়ার ৩ সেনা অধিনায়ক নিহত