আওয়ামী লীগের ব্যানার ভাইরাল!

জামালপুর সদরে আওয়ামী লীগের সম্মেলনের একটি ব্যানার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ভাইরাল হওয়া এই ব্যানার নিয়ে জামালপুরে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

ব্যানার তৈরির সঙ্গে জড়িতরা প্রিন্টিং মিসটেক বললেও বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা মনে করছেন এটি জামালপুর সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোজাফ্ফর হোসেনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের বহি:প্রকাশ।

জামালপুর সদর উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২৭ ফেব্রুয়ারি রাতে। ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. শাহরিয়ার উজ্জ্বল।

সম্মেলনের ব্যানারের একপাশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়ের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। আরেক পাশে ব্যবহার করা হয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মির্জা আজম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. এম এ মান্নান খান ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাফিজুর রহমান স্বপন, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান আকন্দ বাবু, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য বিজন কুমার চন্দ, শাহরিয়ার উজ্জ্বল, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হযরত আলী রিপন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সাত্তার, শ্রীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক ফনি, শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়াকুব আলী ও সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক মিঠুর ছবি।

ব্যানারে ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি আওয়ামী লীগ নেতার ছবি স্থান পেলেও সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোজাফ্ফর হোসেনের ছবি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল হোসেনের ছবি না থাকায় এই ক্ষোভের কারণ হয়েছে।

সদরের এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যানের ছবি ব্যবহার না করার মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত কাজ করা হয়েছে বলেও মনে করছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।

আবার কেউ মনে করছেন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে শুধুমাত্র জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার ছবি ব্যবহার করার নির্দেশনা আছে। কিন্তু বর্তমানে ব্যানারগুলো তৈরি করা হয় সিনেমার পোস্টারের মতো।

জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের জেলা সমন্বয়কারী শাহরিয়ার উজ্জ্বল বলেন, শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কোয়াকাটায় ছিলেন। সভাপতি এই ব্যানার তৈরি করেছেন। সম্মেলনে গিয়ে তিনি দেখেন সদর আসনের এমপির ছবি নাই। এ নিয়ে তিনি তাৎক্ষণিক ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ থাকায় একটি গ্রুপ ব্যানারের ছবি ভাইরাল করেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

জামালপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদর উপজেলা সমন্বয়কারী হযরত আলী রিপন বলেন, প্রিন্টিং মিসটেক নয় এটি পরিকল্পিত ঘটনা। জেলা ও উপজেলা সমন্বয়কারীকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছে তিনি বিতর্কিত ওই ব্যানার বাদ দিতে বলেন। তাকে না দেখিয়ে ওই ব্যানারটি তৈরি করা হয়েছে।

শ্রীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়াকুব আলী জানান, প্রিন্টিং মিসটেক হয়েছে। এ ঘটনার জন্য ফেসবুকে তিনি একটি স্ট্যাটাস দিয়ে প্রিন্টিং মিসটেকের কথা বলেছেন। তিনি ইচ্ছাকৃত বা ষড়যন্ত্র করে এসব করেননি বলেও দাবি করেন।

জামালপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল হোসেন বলেন, সদরে আওয়ামী লীগের কোনো অনুষ্ঠানে সদরের এমপির ছবি না থাকাটা রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত।

জামালপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. এম এ মান্নান খান বলেন, শ্রীপুর ইউনিয়নের ওই সম্মেলনে তিনি ছিলেন না, তিনি ছিলেন সদরের ঘোড়াধাপের একটি সম্মেলনে। ছবি নিয়ে ভাইরাল করা এগুলো অনর্থক বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের দেওয়া একটি পত্র তার কাছে আছে। ওই পত্রে নির্দেশনা আছে আওয়ামী লীগের অনুষ্ঠানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার ছবি ব্যবহার করা যাবে। এগুলো এখন আর কেউ মানেন না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব বিনষ্টের ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না: হানিফ
Next post বিএনপি একটি বিচ্ছিন্ন রাজনৈতিক দল