আত্মসমর্পণ না করে মৃত্যুকে বেছে নিল ইউক্রেনের ১৩ সেনা

রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ না করে মৃত্যুকে বেছে নিলেন ইউক্রেনের ১৩ সেনা কর্মকর্তা। কৃষ্ণ সাগরের ছোট্ট দ্বীপ স্নেক আইল্যান্ডে দায়িত্বপালনকালে আত্মসমর্পণে অস্বীকৃতি জানানোয় রাশিয়া বোমা হামলা চালিয়ে তাদের হত্যা করে। খবর বিবিসি ও ইন্ডিপেন্ডেন্টের।

সেনাদের এই বীরত্বের ভূয়সী প্রসংসা করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। এ ছাড়া বীর এই সেনাদের মরণোত্তর পুরস্কার দেওয়া হবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

খবরে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ঘোষণা দেওয়ার পর স্নেক আইল্যান্ড অবরোধ করে রাশিয়ার একটি যুদ্ধজাহাজ।

সেখানে দায়িত্বপালন করছিলেন ইউক্রেনের ১৩ সেনা। রুশ সেনারা ইউক্রেনের সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানায়। কিন্তু ইউক্রেনের ওই ১৩ সেনা আত্মসমর্পণ করতে অস্বীকৃতি জানান। এর পরই সেখানে বোমা হামলা চালায় রুশ সামরিক বাহিনী এবং ১৩ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হন।

এদিকে বোমা হামলায় নিহত হওয়ার আগে যুদ্ধজাহাজে অবস্থানরত রুশ সেনাসদস্যদের সঙ্গে ইউক্রেনের সেনাদের শেষ মুহূর্তের কথোপকথনের একটি অডিওক্লিপ টুইটার, টিকটকসহ অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলোতে ভাইরাল হয়েছে।

সেখানে রুশ যুদ্ধজাহাজ থেকে ইউক্রেনের সেনাদের উদ্দেশে বলতে শোনা যায়, আমি আপনাকে আপনার অস্ত্রসহ আত্মসমর্পণের পরামর্শ দিচ্ছি, না হলে আমি গুলি চালাব। আপনি কি আমার কথা শুনতে পেয়েছেন?

জবাবে ইউক্রেনের সেনারা আত্মসমর্পণ করতে অস্বীকৃতি জানান। পরে ওই সেনাকে বলতে শোনা যায়, মর তোরা। এরপর রাশিয়ার বোমা হামলায় তারা সবাই নিহত হন।

এ ঘটনায় ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, স্নেক আইল্যান্ডে তারা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করে গেছেন। আত্মসমর্পণ না করে তারা সবাই বীরত্বের সঙ্গে মৃত্যুকে বরণ করেছেন। হিরো অব ইউক্রেন (ইউক্রেনের বীর) হিসেবে তাদের সবাইকে মরণোত্তর পুরস্কার দেওয়া হবে। দেশের জন্য জীবন উৎসর্গ করায় চিরস্থায়ী এই পুরস্কার পাবেন তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post ১১ দিনের যে কর্মসূচি বিএনপির
Next post দেশ ছাড়বেন না ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট