‘নির্বাচন কমিশন আ.লীগের সহযোগী সংগঠন’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, নির্বাচন কমিশন নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। নির্বাচন কমিশন কোনো ফ্যাক্টর না। এদের নিয়ে কথা বলে সময় নষ্ট করে লাভ হবে না। নির্বাচন কমিশন হচ্ছে ভোট চোর আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন। সহযোগী সংগঠন নিয়ে মাথা ঘামিয়ে লাভ নেই। আপনাকে আগে চোরকে ধরতে হবে।

শুক্রবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় স্বাধীনতা হলে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম আয়োজিত ‘নির্বাচন কমিশন গঠনের তামাশা এবং নিরপেক্ষ নির্বাচনের বাস্তবতা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

আমির খসরু বলেন, বাংলাদেশে যারা ভোট চুরি করে ক্ষমতায় বসে আছে, তারা হচ্ছে প্রধান চোর। সময় এসে গেছে, এই চোরদেরকে ধরতে হবে। প্রধান চোরকে ধরতে পারলে সহযোগী চোররা এমনিতেই ধরা পড়বে। নির্বাচন কমিশন নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে সবচেয়ে দেশের জন্য বেশি প্রয়োজন আগামী নির্বাচনে নিরপেক্ষ সরকারের ওপর জোর দেওয়া।

বিএনপির এই নেতা বলেন, দেশে দুটি জিনিস পরিবর্তন করতে হবে। হাসিনার বদলে কেয়ারটেকার সরকার, ইভিএম-এর বদলে ব্যালট পেপার। এটাই এখন স্লোগান। কারণ এই দুটি পরিবর্তন করতে পারলে সব কিছু সমাধান হবে।

দেশের সকল সংগঠনের উদ্দেশে আমির খসরু বলেন, যারা ভোট চুরি করে ক্ষমতায় বসে আছে আপনারা যদি তাদের সহযোগী হয়ে যান তাহলে পরবর্তীকালে দেশের জনগণের চোখে শত্রু হয়ে যাবেন।

দেশের জনগণের জানমালের দায়িত্বে যারা আছেন তারা এই ভোট চোরের সহযোগী হবেন না। চোরের সহযোগী হলে বাংলাদেশের মানুষের কাছে শত্রু হয়ে যাবেন। আর একবার শত্রু হয়ে গেলে জনগণের কাছে আপনাদের কোনো গ্রহণযোগ্যতা থাকবে না।

সংগঠনের উপদেষ্টা সাঈদ আহমেদ আসলামের সভাপতিত্বে ও সভাপতি মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ, ওলামা দলের সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা শাহ নেসারুল হক ও তাঁতী দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, কৃষকদ‌লের সহসাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর প্রমুখ।

উৎসঃ dailynayadiganta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post এক পুলিশ ক্লান্ত হলে আরেক পুলিশ পেটাত
Next post ইউক্রেনে হামলা : যে ১০ ধরনের বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বাংলাদেশে