বৈঠক চলাকালে বিএনপি নেতাকে খুন করল আ.লীগ নেতা

আন্তঃজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধের জেরে বগুড়ার শিবগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতার ছুরিকাঘাতে বিএনপি নেতা শহিদুল ইসলাম (৫০) খুন হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার কিচক বন্দরে আন্তঃজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে বৈঠক চলাকালে শহিদুলকে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে তিনি বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে মারা যান। শিবগঞ্জ থানার ওসি দীপক কুমার দাস এ বিষয়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহত শহিদুল ইসলাম বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার কিচক ইউনিয়নের পালিহার কেকারপাড়া গ্রামের মৃত আফাজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি বিএনপির কিচক বন্দর কমিটির সভাপতি ও আন্তঃজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন কিচক বন্দর শাখার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

নিহতের চাচাতো ভাই বগুড়া বার সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল বাছেদ ও অন্যরা দাবি করেন, সংগঠনের পদ নিয়ে শহিদুলের সঙ্গে আন্তঃজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ও কিচক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ এবং ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি ইয়াকুব আলীর সঙ্গে বিরোধ চলে আসছিল। তারা শহিদুলকে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছিল।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে কিচক বন্দরে আন্তঃজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে সংগঠনের পদপদবি নিয়ে সভা চলছিল। এ সময় মতানৈক্য দেখা দিলে আওয়ামী লীগ নেতা আবু সাঈদ তার (শহিদুল) পেটে ছুরিকাঘাত করেন।

রক্তাক্ত শহিদুলকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করলে রাত ১০টার দিকে তিনি মারা যান। এ ছুরিকাঘাতের পর কিচক বন্দরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

শিবগঞ্জ থানার ওসি দীপক কুমার দাস বলেন, নিহত শ্রমিক নেতা শহিদুল বিএনপি ও অভিযুক্ত আবু সাঈদ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তবে হত্যাকাণ্ডটি তাদের শ্রমিক সংগঠনের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে।

তিনি আরও জানান, মরদেহ মর্গে আছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

উৎসঃ jugantor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post রাজনৈতিক সংকট থেকে দেশকে রক্ষা করতে মাঠে নামছে বামপন্থী শক্তি
Next post রাশিয়ার জনগণকে সরকারের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে বললেন নুর