‘এরপর যে সরকার আসবে তারা তিন মাস ক্ষমতায় থাকবে’

মানুষ রাজপথে নেমেছে। ওমিক্রন বিধি-নিষেধের আগে বিএনপি রাজপথে নেমেছিল। হাজার হাজার মানুষ যখন জনসভায় যোগ দিচ্ছিল এবং কোথাও কোথাও ১৪৪ ধারা জারি করলেও তা ভেঙে সভা হয়েছে।

এখন বিধি-নিষেধ নাই। তারপরে আমরা রাজপথে আসছি। এই বার ১৪৪ দিলেও আমরাও ভেঙে ফেলে দেখিয়ে দেব। কোনো বিধি-নিষেধের সামনে মাথা নত করব না। অতীতেও বাংলাদেশের জনগণ করেনি।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না এসব কথা বলেছেন।

মাহমুদুর রহমান মান্না আরও বলেন, আজ হোক কাল হোক এই সরকার যাবেই। এরপর যে সরকার আসবে অর্থাৎ কেয়ারটেকার (তত্ত্বাবধায়ক) সরকার হতে পারে। তিন মাস তারা ক্ষমতায় থাকবে, তারপর তারা নির্বাচন দেবে।

‘সারা দেশে এই সরকারের ওসি-এসপি-ডিসিরা যে অত্যাচার নির্যাতন করেছে, ওরাই আবার ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করবে? না। ওদেরও বদলানো হবে। তিন মাসে প্রশাসনও বদলাবে। সচিবালয়ে যারা আছে, তাদের বদলাতে হবে। সারা দেশ থেকে লুট করে বাংলাদেশকে যারা নিঃস্ব করে ফেলেছে, তাদের বিচার করা হবে।’

খালেদা জিয়ার মুক্তি, নিপুন রায় চৌধুরীসহ দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ উপজেলা শাখার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং সাম্প্রদায়িক উসকানিদাতা কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি আব্দুস সালামের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের আহ্বায়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমানের সভাপতিত্বে এবং বিএনপির যুববিষয়ক সহসম্পাদক নেওয়াজ আলী নেওয়াজের পরিচালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন- নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপি নেতা আব্দুস সালাম, খায়রুল কবির খোকন, সরফত আলী সপু, আজিজুল বারী হেলাল, সাইফুল আলম নিরব, ডা. রফিকুল ইসলাম, সফিকুল ইসলাম মিল্টন, রবিউল ইসলাম খান রবি, মশিউর রহমান বিপ্লব, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, মৎস্যজীবী দলের আব্দুর রহিম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post ফিরে আসছে সোভিয়েত ইউনিয়ন?
Next post ‘বিডিআর বিদ্রোহের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ না করার পেছনে ষড়যন্ত্র’