ব্রেকিং নিউজঃ হঠাৎ রাজপথে নামল জামায়াত

রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ। মঙ্গলবার সকালে কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদের নেতৃত্বে এ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে শুরু হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ বলেন, ৯০ ভাগ মুসলমানের দেশে মদের লাইসেন্স প্রদানের মাধ্যমে যুবসমাজকে নৈতিক অবক্ষয়ের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। মদের লাইসেন্স দিয়ে জাতিকে বেশামাল করার চক্রান্ত এদেশের মানুষ মেনে নেবে না। এই সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে যুব সমাজকে বেশামাল করে দিতে চায়, একটি প্রজন্মকে ধ্বংস করে দেয়ার জন্য তারা পাঁয়তারা করছে।

তিনি বলেন, একদিকে বইমেলায় ইসলামী বই প্রদর্শন ও বিক্রি অলিখিত আইনের মাধ্যমে বন্ধ করা হয়েছে। অপরদিকে যুব সমাজকে মদ, মাদকতা ও বিকৃত কর্মকান্ডের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। দেশপ্রেমিক জনতা যুব সমাজ ও জাতিকে ধ্বংসকারী সরকারের এই অনৈতিক সিদ্ধান্ত কখনো মেনে নিবে না। অবিলম্বে ইসলামে সম্পূর্ণরূপে হারাম ঘোষণা করা মদের অবাধ লাইসেন্স প্রদানের আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে।

অন্যথায় দেশপ্রেমিক জনতা তীব্র গণআন্দোলনের মাধ্যমে তা প্রতিহত করবে।

দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে জনজীবন স্থবির হতে চলেছে উল্লেখ করে ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ বলেন, চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপণ্যের দাম মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। দেশে দুর্ভিক্ষের পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে অথচ এদিকে সরকারের কোন দৃষ্টি নেই। যারা মানুষের দুঃখ দুর্দশা লাঘবের পরিবর্তে নতুন করে আরও সমস্যা আমাদের উপরে চাপিয়ে দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। তিনি সরকারের সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে এদেশের সাধারণ জনগণকে তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তুলার উদাত্ত আহবান জানান।

বিক্ষোভ মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন- কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট ড. মোঃ হেলাল উদ্দিন ও মুহা. দেলাওয়ার হোসেন, কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য শামছুর রহমান, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুস সালাম, যুব নেতা কামাল হোসাইনসহ ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের বিভিন্ন থানার আমীর, সেক্রেটারি ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

উৎসঃ mzamin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post ১৮ বছরে ঋণ অবলোপন ৫৮ হাজার কোটি টাকা
Next post আগে জানলে তোর ভাঙা নৌকায় উঠতাম না