দেশে রাজনৈতিকভাবে ক্ষমতাবান একটি গোষ্ঠী তৈরি হয়েছে, যা দেশকে বিপদে ফেলা হচ্ছে’

সিপিডির চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান বলেছেন, দেশে রাজনৈতিকভাবে ক্ষমতাবান একটি গোষ্ঠী তৈরি হয়েছে; যাদের হাতে জ্বালানি খাত ও বিদ্যুৎ উৎপাদনের নিয়ন্ত্রণ চলে গেছে। চাহিদার অতিরিক্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের মাধ্যমে দেশকে আর্থিকভাবে বিপদে ফেলা হচ্ছে বলেও মনে করেন তিনি।

রেহমান সোবহান আরো বলেন, এই গোষ্ঠী অতি মুনাফার জন্য দেশের পরিবেশ ও জলবায়ুর ক্ষতি করে হলেও অপ্রয়োজনীয় বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করছে। এ গোষ্ঠীর হাত থেকে দেশের সাধারণ মানুষকে রক্ষা করতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক প্রভাব সৃষ্টি করা।

গত শনিবার ‘জ্বালানি, জলবায়ু ও টেকসই উন্নয়ন’ শীর্ষক দুই দিনের এক সম্মেলনের সমাপনী অধিবেশনে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্টাল নেটওয়ার্ক (বেন) আয়োজিত এ সম্মেলনে দেশ-বিদেশের পরিবেশবাদীরা অংশ নেন। রাজধানীর স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে দুই দিনের এ সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীদের একটি অংশ ভার্চুয়ালি যোগ দেন।

বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সভাপতির বক্তব্যে রেহমান সোবহান বলেন, দেশের শাসকগোষ্ঠীর বড় অংশ বৈশ্বিক নাগরিক হয়ে গেছে। তারা বছরের বড় সময় উন্নত দেশগুলোতে থাকে। ফলে পরিবেশের কী ক্ষতি হলো আর জলবায়ুর কী পরিবর্তন ঘটল, সেটি তাদের কাছে বড় বিষয় না। এটা তাদের কাছে একাডেমিক বিষয়। এগুলো তাদের স্পর্শ করে না। পরিবেশের ক্ষতি ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশের গরিব ও সাধারণ মানুষ। এসব মানুষ নদীভাঙন, দখল ও দূষণের বড় শিকার হচ্ছে। তাই পরিবেশ ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হলে এসব মানুষের কণ্ঠস্বর রাজনীতির মূলধারায় নিয়ে আসতে হবে।

দেশে এখন যে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে, তাতে সরকার আর্থিক ঝুঁকি নিচ্ছে আর বেসরকারি খাত মুনাফা নিচ্ছে বলে মন্তব্য করেন রেহমান সোবহান। আমাদের তৈরী পোশাক খাতও বৈশ্বিকভাবে প্রতিযোগিতা করে টিকে আছে।

সম্মেলনে বেনের প্রধান সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশে লাগামহীন ও অনৈতিক পুঁজিবাদীব্যবস্থা তৈরি হয়েছে।

বাপার সহসভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক খন্দকার বজলুল হক বলেন, রাজনীতি আর রাজনীতিকদের হাতে নেই। ব্যবসায়ী ও আমলারা রাজনীতির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিয়েছেন।

এ ছাড়া বেনের সহসভাপতি কামরুল আহসান খান বলেন, দেশে উন্নয়ন প্রকল্প আর শিল্পায়ন, বিদ্যুৎ উৎপাদনের নামে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি শুরু হয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে উদ্যোগ নিয়ে এগুলো থামানো না গেলে দেশের সর্বনাশ হয়ে যাবে। সমাপনী অধিবেশন সঞ্চালনা করেন বাপার সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous post বিএনপি নির্বাচনের কোনো প্রক্রিয়াতেই থাকবে না: ফখরুল
Next post দেশ পরিচালনার ব্যর্থতার দায় আ.লীগ সরকার কোনোভাবেই এড়াতে পারে না: মির্জা ফখরুল