পূজার দিনে ভোট, পেছানোর দাবি ইশরাকের

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজার দিনে সিটি নির্বাচনের তারিখ পড়ায় ভোট পিছিয়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণের বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন।

বুধবার দুপুরে ধানমণ্ডি এলাকায় ষষ্ঠ দিনের মতো নির্বাচনী প্রচার ও গণসংযোগকালে তিনি এসব কথা বলেন।

সনাতন ধর্মাবলম্বীরা ভোট পেছানোর দাবি করছে, এ বিষয়ে আপনাদের দলীয় সিদ্ধান্ত কী– এমন প্রশ্নের জবাবে ইশরাক বলেন, এই দাবি গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা উচিত। আমরা মুসলমান, আমাদের ঈদের দিন যদি ভোটগ্রহণ হতো, তা হলে আমরাও ভোট পেছানোর দাবি করতাম। তাই আমি মনে করি পূজার দিনে ভোট নেয়া ঠিক হবে না। অবশ্যই ভোট পেছানো উচিত।

মেয়র হলে কী কী উদ্যোগ নেবেন সে সম্পর্কে ইশরাক বলেন, আমি মেয়র নির্বাচিত হলে প্রথমে যে কাজটি করব তা হচ্ছে, একটি বাসযোগ্য নগরী গড়ে তোলার লক্ষ্যে যত পদক্ষেপ নেয়া দরকার তাই নেব।

পোস্টার ছেঁড়ার অভিযোগ পেয়ে প্রিসাইডিং অফিসারসহ নির্বাচনী কর্মকর্তারা কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে কিনা জানতে চাইলে বিএনপির এই প্রার্থী বলেন, আমাদের নির্বাচনী ক্যাম্প থেকে তাদের কাছে প্রতিনিয়ত অভিযোগ যাচ্ছে। তাদের কাছ থেকে আমরা খুব বেশি কিছু আশাও করি না। এখন পর্যন্ত আমি তাদের মাঠেও দেখিনি।

ধানমণ্ডির বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে নির্বাচনী প্রচারণা ও গণসংযোগ শুরু হয়ে ধানমণ্ডি ১৫, জিগাতলা কাঁচাবাজার, হাজারীবাগ এলাকার অবস্থান করছে। প্রচারে ইশরাকের পাশে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আজিজুল বারী হেলাল, যুবদল সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ।

রোজ পোস্টার ছিঁড়ছে, এটাই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের নমুনা: ইশরাক

সিটি নির্বাচনে সব প্রার্থীর জন্য সমতল ভূমি তৈরি হয়নি বলে আবারও অভিযোগ করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন।

তিনি বলেন, সন্ত্রাসীরা অনেক জায়গায় ধানের শীষের পোস্টার লাগাতে বাধা দিচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে লাগানো পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। প্রতিদিনই পোস্টার ছিঁড়ছে। এসব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে আমরা রোজ অভিযোগ করছি। কিন্তু কমিশনের দিক থেকে কোন উদ্যোগ দেখছি না। এটা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের নমুনা হতে পারে না।

আজ বুধবার বেলা একটায় ধানমন্ডি বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর আগে তিনি এসব কথা বলেন। অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার জ্যেষ্ঠ ছেলে আরও বলেন, প্রতিদিনেই বিভিন্ন এলাকা থেকে ধানের শীষের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। পোস্টার লাগাতে বাঁধা দেয়া এবং কর্মীদের মারধর ও পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থীই নির্বাচনী আচরণবিধি মানছে না। এসবের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেই।

হাজারীবাগে এক পথসভায় ইশরাক হোসেন বলেন, হাজারীবাগ মহানগরীর অধীন হলেও এ এলাকার মানুষ আধুনিক সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না। আমরা নির্বাচিত হলে আধুনিক ঢাকার সঙ্গে তাল মিলিয়ে হাজারীবাগের উন্নয়ন করব। হাজারীবাগে বিরাজমান সমস্যা দূরীকরণ, বায়ু দূষণসহ পরিবেশ উন্নয়নে সর্বোচ্চ গুরূত্ব দেয়া হবে।

গণসংযোগে বিপুল সংখক কর্মীসমর্থক এবং সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণকে শোডাউন বলে আওয়ামী লীগ যে অভিযোগ করছে তা নাকচ করে দিয়ে তিনি বলেন, এটা শোডাউন নয়। এটি এলাকার মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ। এটি বিএনপির প্রতি সাধারণ মানুষের ব্যাপক সমর্থনের বহিঃপ্রকাশ।

এসময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Author: shafah

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *